ভিলা সাভওয়া এবং ল্যু কর্ব্যুজিয়েরের “নতুন স্থাপত্যের ৫ নীতি”

ভিলা সাভওয়া এবং ল্যু কর্ব্যুজিয়েরের “নতুন স্থাপত্যের ৫ নীতি”

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের উত্তর-পশ্চিমের শহর পয়েসিতে অবস্থিত “ভিলা সাভওয়া”( VILLA SAVOYE: ১৯২৯-১৯৩১) প্রকল্পটি বিশ্ব স্থাপত্য গুরু “ল্যু কর্ব্যুজিয়ের”( LE CORBUSIER:১৮৮৭-১৯৬৫)-এর এক অনবদ্য স্থাপত্য কীর্তি। ১৯২৬ সনের দিকে “ল্যু কর্ব্যুজিয়ের” বিংশ শতাব্দীর স্থাপত্য নীতি হিসেবে “নতুন স্থাপত্যের ৫ নীতি” বা “5-points of New Architecture” শীর্ষক ধারনার প্রনয়ণ করেন। “ভিলা সাভওয়া” প্রকল্পটিতে তাঁর প্রনীত পাঁচটি নীতিই প্রকৃষ্টভাবে প্রতিফলিত হয়েছে। যা পরবর্তিতে আধুনিক স্থাপত্য বিদ্যার অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিনত হয়।

নীতি পাঁচটি ছিল এমন।

১। PILOTIS–

স্থাপত্য গুরু ল্যু কর্ব্যুজিয়ের ভারবাহী দেয়ালের পরিবর্তে “ছকে বিন্যস্ত ভারবাহী রি-ইনফোর্সড কংক্রিট কলাম” বা “Grid of Reinforced Concrete Load-bearing Columns” এর ধারনা দেন যাকে PILOTIS বলা হয়। এর দ্বারা নান্দনিকভাবে ভবনের ভার প্রতিস্থাপিত করার পদ্ধতি তিনি তুলে ধরেন। এর ব্যবহারের ফলে ভবনের অভ্যন্তরে পূর্বের তুলনায় আরও বেশি open space সৃষ্টি করার সুযোগ তিনি তৈরী করেন। দৃষ্টী-নন্দন মুক্ত কলাম বা Free Standing কলামের ব্যবহার শুরু হয়।

২। নীচতলার অবারিত নকশা-(Free Design of the Ground Plan)

ভারবাহী দেয়াল অপসারণের মাধ্যমে নীচতলাসহ অন্যান্য ফ্লোরেও খোলামেলা পরিবেশ নিশ্চিতের অবারিত সুযোগ সৃষ্টি হয়। কাঠামোগত কৌশলের সুযোগ গ্রহন করে স্থাপত্য গুরু ল্যু কর্ব্যুজিয়ের ভবনের বড় একটি অংশ উপরের স্তরে স্থানান্তর করে নীচতলাকে OPEN করার পদ্ধতি দেখিয়ে দেন। আধুনিক স্থাপত্যের অন্যতম গুরুত্তপূর্ণ বিষয় “পরিসরের সাবলীল গতি” বা “Natural flow of Space” নিশ্চিতের সুযোগ তৈরী হয়।

৩। ভবন আবরনের খোলামেলা নকশা (Free Design of the Facade)

ভবনের বহিঃআবরনকে (External Facade) কাঠামোগত জটিলতা এড়িয়ে এর মূল ভারবাহী কাঠামো থেকে পৃথক করে ফেলার একটি উদাহরন তিনি দেখিয়ে দেন এই ভবনটির মাধ্যমে। এই সুযোগ সৃষ্টি হবার ফলে নতুন দিগন্তের সূচনা হয়। ফলে বিভিন্ন ধরনের নতুন নতুন ভাবনা প্রয়োগ করার প্রয়াস উন্মুক্ত হয়ে যায়। এতে খোলামেলা নকশা প্রণয়নের নতুন ধারনার সূচনা হয়।

৪। দীর্ঘ আনুভূমিক জানালার ব্যবহার-( Horizontal Windows)

তিনি গতানুগতিক বর্গাকার বা আয়তকার জানালার ধারনা ভেঙ্গে আনুভুমিকভাবে দীর্ঘ ও ফিতাকৃতির লম্বা জানালা ব্যবহার করেন। ফলে ভবনের অভ্যন্তরে প্রতিটা কক্ষে সমানভাবে আলো ও বাতাস সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়। Ventilation System এর উন্নয়ন ঘটে।

৫। ছাদ বাগান-(Roof Garden)

“ল্যু কর্ব্যুজিয়ের” প্রকৃতিকে ভবনের সাথে সম্মিলন ঘটানোর এই ধারনার ব্যবহার করেন। ভবন বাসিন্দাদের চাহিদা পুরণ ছাড়াও এর মাধ্যমে কংক্রিট ছাদকে সুশীতল রাখার ধারনারও প্রবর্তন ঘটে।

১৯২৯-১৯৩২ সময়কালে পিয়েরে সাভওয়া এবং তার স্ত্রী ইউজেনি এর জন্য ভবনটি নির্মাণ করা হয়। সেই সময়ে এই ভবনটি “আধুনিক স্থাপত্য”-এর আইকন হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। ২০১৬ সালে UNESCO একে “বিশ্ব ঐতিহ্য” তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে।

—————————————
Reference: Foundation Le Corbusier
[ লেখকঃ স্থপতি মুহাইমিন শাহরিয়ার, প্রধান স্থপতি, ডিকন্সট্রাকশন আর্কিটেক্টস]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *